রবিবার , ৮ আগস্ট ২০২১ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. অলৌকিক
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত
  7. কবিতা
  8. করোনাভাইরাস আপডেট
  9. ক্যাম্পাস
  10. খেলাধুলা
  11. গনমাধ্যম
  12. চাকুরী
  13. জাতীয়
  14. ধর্ম
  15. নারী ও শিশু

ট্রাফিকের দাঁয়িত্বে বেছে নিয়েছেন হোটেল কর্মচারী সুকেন।

প্রতিবেদক
এইচ এম ওবায়দুল হক
আগস্ট ৮, ২০২১ ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

সাকিব ফারহানঃ সুকেন সরকার (৪০) এক খাবার হোটেলে কাজ করে জীবিকা চালাতেন। বর্তমানে করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে চলছে লকডাউন। এই লকডাউনে হোটেল বন্ধ,কাজও বন্ধ। এতে কর্মহীন দিন কাটাচ্ছিলেন সুকেন। তিনি দুর্ঘটনা রোধে ও যানযট নিয়ন্ত্রণে স্বেচ্ছাশ্রমে ট্রাফিক পুলিশের কাজ করছেন। কুষ্টিয়া – রাজবাড়ী আঞ্চলিক মহাসড়কস্থ কুমারখালীর ব্যস্ততম চৌরাস্তা এলাকায় ট্রাফিকের কাজ করছেন।
 সুকেন সরকার কুমারখালী পৌরসভার সেরকান্দি এলাকার মনোরঞ্জন সরকারের ছেলে। পরিবারে তাঁর বাবা, মা, স্ত্রী ও দুই সন্তান রয়েছে। প্রায় ১৫ দিন ধরে তিনি এই দাঁয়িত্ব পালন করছেন। তবে কোনো সম্মানী বা ভাতা পাচ্ছেন না তিনি।স্থানীয়রা জানায়, কুমারখালী বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন চৌরাস্তা একটি ব্যস্ততম স্থান। এর পশ্চিমের ১২ কিলোমিটার কুষ্টিয়া জেলা শহর, দক্ষিণে ৫০০ মিটার দুরে কুমারখালী থানা, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, পৌরসভা ও প্রধান শহর। দক্ষিণের ৩০০ মিটার দুরে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর আর পূ্র্বদিকে গেল রাজবাড়ী সড়ক।
ফলে সব সময় যানবহন, যানযট আর জনসমাগম লেগেই থাকে গোলচত্ত্বর এলাকায়। কিন্তু সেখানে কোন ট্রাফিক পুলিশ বা কর্তব্যরত ব্যক্তি নেই। প্রায়ই ঘটে সড়ক দুর্ঘটনায়। প্রায় তিনমাস পূর্বে ওপেন হাউজ ডে কর্মসূচিতে এলাকাবাসীর দাবি তোলেন ট্রাফিক পুলিশের। সেদিন ওপেন হাউজ ডে কর্মসূচির প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পুলিশ সুপার মোঃ খাইরুল আলম প্রতিশ্রুতি দেন ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগের। কিন্তু তিনমাসেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।
আরো জানা গেছে, কুমারখালী গোলচত্ত্বর একটি ব্যস্ততম স্থান। কুষ্টিয়া – রাজবাড়ী আঞ্চলিক মহাসড়কের উন্নয়ন কাজের পর ব্যস্ততা আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে প্রায়ই ঘটে সড়ক দুর্ঘটনা। সাম্প্রতিক সময়ে একজন যুবক সেখানে ট্রাফিকের দাঁয়িত্ব পালন করছে। অথচ সে নিজেই জানেনা ট্রাফিক পুলিশের দাঁয়িত্ব সমন্ধে।এব্যাপারে সুকেন সরকার বলেন, একটি হোটেলে কাজ করতাম। রকডাউনে হোটেল বন্ধ। কর্মহীন। আর গোলচত্ত্বর এলাকায় যানযট বেশি। মাঝেমাঝেই দুর্ঘটনা ঘটে। তাই যানযট নিয়ন্ত্রণে কাজ করছি। তবে কোন ভাতা বা সম্মানী পাইনা।
কুমারখালী পৌরসভার ৫ নং কাউন্সিলর এস এম রফিক বলেন, বাসস্ট্যান্ড এলাকাটি খুবই ব্যস্ততম। সব সময় যানযট, যানবহন ও জনসমাগম থাকে। কিন্তু কোন ট্রাফিক পুলিশ নেই। ফলে প্রায় ঘটছে প্রাণহীনর ঘটনা। তিনি আরো বলেন, পুলিশ সুপার মহোদয় ট্রাফিক নিয়োগের কথা দিয়েছিলেন, কিন্তু তিনমাসেও বাস্তবায়ন হয়নি।
কুমারখালী পৌরসভার মেয়র সামছুজ্জামান অরুন বলেন, গোলচত্ত্বরে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে। কুষ্টিয়া – রাজবাড়ী সড়ক সংস্কারের পর যানবহন আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু ট্রাফিক পুলিশ নেই। তিনি আরো বলেন, এক ওপেন হাউজ ডে প্রোগামে পুলিশ সুপার মহোদয় কথা দিয়েছিল, কিন্তু বাস্তবায়ন হয়নি। নতুন করা পুনরায় এব্যাপারে কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলা হবে।কুষ্টিয়া পুলিশ সুপার মোঃ খাইরুল আলম সাংবাদিকদের এক সাক্ষাৎকারে বলেন, কুমারখালী গোলচত্ত্বরে ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম। কিন্তু করোনার অতিমারি ও লকডাউনে তা বাস্তবায়ন হয়নি। আশা করছি পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই বাস্তবায়নে কাজ করা হবে।

সর্বশেষ - আলোচিত

আপনার জন্য নির্বাচিত

শাহজাদপুরে যুবকের আত্মহত্যা

স্থান পরিবর্তন হয়েছে কিন্তু ভাগ্যের পরিবর্তন হয়নি ফুল বানুর

অতিরিক্ত ডিআইজি হলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের কৃতি সন্তান সৈয়দ নুরুল ইসলাম

রাবিতে প্রধানমন্ত্রীর নামে আবাসিক হলের নিমার্ন কাজের উদ্বোধন 

দিনাজপুর জেলার বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান।

ধামইরহাটে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে চাল ও আটা ক্রয় করছেন

নোয়াখালী বসুরহাটে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে কাদের মির্জার ছেলেসহ আহত ১০

ক্ষেতলালে সরকার পতনের দাবিতে মানব বন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল

আমতলীতে পানিতে ডুবে দুই শিশু মৃত‍্যু কান্নায় ঢলে পড়ে মা-বাবা

কুবির ১ম উপাচার্যের মৃত্যু

Design and Developed by BY AKATONMOY HOST BD