সোমবার , ২১ নভেম্বর ২০২২ | ২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. অলৌকিক
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত
  7. কবিতা
  8. করোনাভাইরাস আপডেট
  9. ক্যাম্পাস
  10. খেলাধুলা
  11. গনমাধ্যম
  12. চাকুরী
  13. জাতীয়
  14. ধর্ম
  15. নারী ও শিশু

ঘাসের ডগায় স্নিগ্ধ শিশিরে ইবিতে শীতকালের জানান

প্রতিবেদক
এইচ এম ওবায়দুল হক
নভেম্বর ২১, ২০২২ ৪:৪৫ অপরাহ্ণ

ইবি প্রতিনিধি : পঞ্জিকার হিসেবে এখন ভরা অগ্রহায়ণ। পৌষের আগমন এখনো অনেকটা সময় বাকি। প্রকৃতিতে উঁকি দিচ্ছে শীত। বাতাসে এখন হিম হিম আবেশ। ঘন কুয়াশার চাদরে আটকে পড়ে দৃষ্টি। কুয়াশার চাদর মাড়িয়ে পূব আকাশে যখন রক্তিম সূর্যের আবাহন, তখন অদ্ভুত এক মায়াবী আভায় ভরে ওঠে চারপাশ। এমনই স্নিগ্ধতায় মোড়ানো ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শীতের সকাল। শীত মৌসুমের আনুষ্ঠানিক সূচনা না হলেও তার সৌন্দর্য ধরা দিচ্ছে দৃষ্টি সীমানায়।

ক্যাম্পাসে শীতের আমেজ দিনে খুব একটা অনুভব না হলেও সন্ধ্যা আর শেষ রাতে ছড়িয়ে পড়ে হিমেল হাওয়া। তখন ছোট্ট চায়ের দোকানে জ্বলে উঠে আলো। এক কাপ চায়ের চুমুকে চাঙ্গা হয়ে ওঠে মন। হেমন্তের স্নিগ্ধ প্রকৃতির নিরবতা ভেঙ্গে কর্মচঞ্চল হয়ে ওঠে সবাই।

শীতের আগমনে ক্যাম্পাসের ক্রিকেট ও ফুটবল মাঠে জেগে উঠা সবুজ ঘাস যেনো ভোরের সূর্যের আলোয় হালকা লালচে রঙয়ের ঝিলিক। দূর থেকে দেখলে মনে হয় প্রতিটি ঘাসের মাথায় যেন মুক্তোর মতো শিশির কণা জমে আছে। ঘাসের ডগায় জমে থাকা শিশির কণা ভোরের সোনাঝরা রোদে ঝিকমিক করে ওঠে। যেনো মাকড়শার জালে দোল খায় মুক্তাদানা।

“মাঠের সবুজ ঘাস কুয়াশার মায়াতে শীতল করে তুলে হৃদয় গহীনকে। সূর্যের নরম রোদ মুক্তো দানার মত করে দ্যুতি ছড়াতে শুরু করেছে ভোরের আলোতে। হিমেল হাওয়াতে শীতের পরশ। গাছের পাতাতে শিশিরবিন্দু মায়া। গানের সুরে এই বেলায় না হারিয়ে শীতের সন্ধ্যায় হোক পথচলা।” এমন বায়নাগুলো উঁকি দিচ্ছে শীতপ্রেমী শিক্ষার্থীদের মনে।

শীতের সকাল অনুভব করতে ভোরের আলোতে হাঁটতে বের হন প্রকৃতি প্রেমীরা। এসময় ইবির হাতিরঝিল খ্যাত ‘মফিজ লেক’ তাদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে। সাথে চারিদিকের কুয়াশাচ্ছন্ন শীতার্ত ভোর লেকের সৌন্দর্যকে করে তুলে প্রেমময়।

হেমন্তের হিমেল হাওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোর প্রাঙ্গণে বিভিন্ন জাতের ফুল ফোঁটা শুরু করেছে। এছাড়া প্রধান ফটক, প্রশাসন ভবন, স্মৃতিসৌধ, কেন্দ্রীয় মসজিদ এলাকা ও পাখি চত্বরে গেলে দেখা মিলবে বাহারি ফুলের সমারোহ। ফুলের দিকে ছুটে যায় মৌমাছিরা। সে দৃশ্য চোখ জুড়ানো, মন ভোলানো। মধু সংগ্রহের উদ্দেশ্যে তারা ছুটে চলে অবিরত।

শীতের আগমনী বার্তায় ক্যাম্পাসের নতুন রুপে আবির্ভাব সম্পর্কে রাস্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মোর্শেদ মামুন বলেন, “প্রতিদিন সকালে ক্যাম্পাসে হাটতে বের হই। পূর্ব আকাশে উদীয়মান  রক্তরাঙা রবির কোমল আলোর নরম স্পর্শ আমাকে মিষ্টি অভিনন্দন জানাই। শীত ছাড়া আর কোন ঋতুর সূর্য এতো মিষ্টি হতে পারে না। এক অন্যরকম ভালোলাগা কাজ করে। চোখের সামনে প্রকৃতিতে এমন ঋতু পরিবর্তনের আভাস দেহমনে এক অন্যরকম শিহরন জাগায়।”

শীতকাল জড়তা বা রিক্ততার প্রতীক হলেও এর রয়েছে এক ঐশ্বর্যরূপ। কারণ জীবন ব্যবস্থার মাঝে মানুষ যখন ক্লান্ত হয়ে উঠে তখন অপেক্ষায় থাকে শীতের আগমনের জন্য। আর সেই দিনটিকে সঙ্গী করে খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করে স্মৃতির আয়নাতে।

সর্বশেষ - আলোচিত

Design and Developed by BY AKATONMOY HOST BD