শফিকুল ইসলাম সোহেল : বিআইডব্লিউটিএর এর চেয়ারম্যান কর্মকর্তাদের  সাথে চরজালালপুর বিভিন্ন স্থানের নদী ভাঙ্গন, জয়ন্তী নদী ড্রেসিং প্রকল্প, ডামুড্যা ও গোসাইরহাট উপজেলা লঞ্চটামিনাল পরিদর্শন করেন শরীয়তপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নাহিম রাজ্জাক বলেছেন, নৌপথ রক্ষার জন্য জাতির জনকের কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডেল্টা প্লান অনুযায়ী কাজ চলছে। তার নির্দেশে ও পরিকল্পনা মতে শরীয়তপুর জেলার ডামুড্যা  ও গোসাইরহাট নৌবন্দরকে সাজানো হবে। এর পূর্বে পরিকল্পনা অনুযায় চয়ন্তিয়া ও পদ্মার শাখা নদী খননের মাধ্যমে ডামুড্যা-ঢাকা নৌপথকে সচল করা হবে। এ জন্য গোসাইরহাটের পট্টি ঘাটে একটি ড্রেজার চলে এসেছে। আরো বেশ কয়েটি ড্রেজার আসবে। তিনি ৯ জুন বুধবার তার নির্বাচনী এলাকা ডামুড্যা ও গোসাইরহাট উপজেলার নদী ভাঙ্গন কবলিত বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন নদী ড্রেজিং কাজ পরিদর্শনকালে সমবেত জনতার উদ্দেশ্য এসব কথা বলেন। নহিম রাজ্জাক বলেন, বিএনপির বহুদলীয় গণতন্ত্র বহুদলীয় তামাশা ছিলো।
ক্ষমতায় যেতে দলের মহাসচিব ফখরুল সাহেবরা রঙিন চশমার ফাঁক দিয়ে খোয়াব দেখছেন বলে তিনি মন্তব্য করেন। ২০০৬ সালে ১ কোটি ২৫ লাখ ভুয়া ভোটার দিয়ে বিএনপি গণতন্ত্রের কফিনে শেষ পেরেক মারতে চেয়েছিলো, দলীয় লোককে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান করতে চেয়ে বিএনপি ওয়ান ইলেভেনের প্রধান কারণ সৃষ্টি করেছিলো। বিচারপতিদের বয়স বাড়িয়ে দলীয় লোক এম হাসানকে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান করতে চেয়েছিলো। এখন দেশের বিরোধী দল হিসেবে গণতন্ত্রের বিকাশে বিএনপি কি ভূমিকা রেখেছে আজ জাতি তা জানতে চায়।
নাহিম রাজ্জাক সকালে ডামুড্যা নৌবন্দর থেকে বিআইডব্লিউটি এর লঞ্চ যোগে কোদালপুর, জালারপুর, মাঝেরচর, টেকবাজার, কুচাইপট্টি, মাইঝারা, নলমুড়ি, দাসের জঙ্গল, পট্টি, তালতলা হয়ে পুণরায় ডামুড্যায় এসে সমবেত জনতার সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। এসময় বিআইডব্লিউটি এর চেয়ারম্যান কমরেড গোলাম সাদেক, জেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক অনল কুমার দে, বন্দর ও পরিবহন পরিচালক কাজী ওয়াফিল নেওয়াজ, নৌসংরক্ষণ ও পরিচালনা পরিচালক রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশল রাফিকুল ইসলাম তালুকদার, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসান হাবীব, গোসাইরহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার আলমগীর হোসাইন, ডামুড্যা উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ গোলন্দাজ  সহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
মন্তব্য করুণ