মঙ্গলবার , ৪ জুলাই ২০২৩ | ২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. অলৌকিক
  3. আইন আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. আবহাওয়া
  6. আলোচিত
  7. কবিতা
  8. করোনাভাইরাস আপডেট
  9. ক্যাম্পাস
  10. খেলাধুলা
  11. গনমাধ্যম
  12. চাকুরী
  13. জাতীয়
  14. ডেস্ক রিপোর্ট
  15. ধর্ম

খুলনার উপকূলে কুমির আতঙ্কে অভাব অনটনে দিন কাটছে নদী নির্ভর পরিবার গুলোর

প্রতিবেদক
মো: সাইদুল ইসলাম সাইদ
জুলাই ৪, ২০২৩ ১১:৪৭ পূর্বাহ্ণ

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি : গত ২৭ ই জুন রাত আনুমানিক ৮ টার দিকে পশ্চিম সুন্দরবনের কালাবগী ফরেস্ট অফিস সংলগ্ন  ফকিরকোনার পাশের নদীতে খ্যাওলা জাল দিয়ে মাছ ধরার সময় কুমিরের আক্রমণের শিকার হয় আরশাদ মোড়লের ছেলে খায়রুল মোড়ল (৩২)।এর দু’দিন পরেই নদীতে ভাসমান অবস্থায় পাওয়া যায় তার লাশ।এই ঘটনার পর থেকে পুরো উপকূল জুড়ে কুমির আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।ভয়ে নদীতে মাছ ধরতে পারছেন না উপকূলের হতদরিদ্র পরিবার গুলো।বিশেষ করে শিবসা,ভদ্রা,সুতারখালী,চুনকুড়ি এবং পশুর নদীর উপর যাদের পরিবার নির্ভরশীল  তাদের পরিবারে অভাব অনটন দেখা দিয়েছে।
সুতারখালী ৪নং ওয়ার্ডের উন্নয়ন কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবক মতিন বিশ্বাস বলেন,আগে প্রতিদিনই সুতারখালী নদীতে কিছু মানুষ খ্যাওলা জাল দিয়ে মাছ ধরে সংসার চালাতো বর্তমানে কুমির আতঙ্কে তাদের সেই মাছ ধরাও বন্ধ হয়েছে।বর্তমানে তারা অভাব অনটনে দিনযাপন করছে।নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালাবগী থেকে একজন জানান,প্রতিদিনই নদীতে জাল টেনে কোনো রকমে সংসার চালাতাম।পেটের দ্বায়ে প্রশাসনের ভয়কে উপেক্ষা করে কোনো রকমে পরিবারের মুখে লবণ ভাত জোটাতে পারলেও বর্তমানে কুমির আতঙ্কে সেটাও সম্ভব হচ্ছে না।দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি এবং কুমিরের ভয়ে নদীতে নামতে না পারায় পরিবার,পরিজন নিয়ে খুবই দুর্বিষহ অবস্থার ভিতর দিনযাপন করছি।
কালাবগী ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নিমাই রায় সুন্দরবন নিউজকে জানান,কুমিরের আক্রমণে খায়রুল মোড়ল নিহতের পর এলাকায় শোকের ছায়া যেমন নেমে এসেছে তেমনি কুমির আতঙ্কে আছে কালাবগির মানুষ গুলো।বিশেষ করে কালাবগী ফকিরকোনার (বিচ্ছিন্ন দ্বীপ) মানুষ গুলো মারাত্মক দুর্বিষহ অবস্থার ভিতর  দিনযাপন করছে।তারা নদীতে মাছ ধরাতো দুরে থাক গোসল করতে নামতেও ভয় পাচ্ছে।দীর্ঘদিন ধরে সুন্দরবন বন্ধ থাকায় এমনিতেই তাদের পরিবারে অভাবের হাতছানি তার উপর কুমির আতঙ্ক যেন “মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা”।তিনি আরো বলেন,নিহত খায়রুল মোড়লের পরিবার কে খুলনা জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে আর্থিক সহযোগিতার প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে,যা খুব শীঘ্রই তার গর্ভবতী স্ত্রীর নিকট তুলে দেয়া হবে।
উল্লেখ্য যে,গত ১ জুন থেকে সুন্দরবনে প্রবেশ এবং সব ধরনের সম্পদ আহরনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে যা চলবে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত।বন বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, সুন্দরবনে মৎস্যসম্পদ রক্ষায় ২০১৯ সাল থেকে প্রতিবছর ১ জুন থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত সব নদী ও খালে মাছ আহরণ বন্ধ রাখা হচ্ছে। সুন্দরবনের ৬ হাজার ১৭ বর্গকিলোমিটার বাংলাদেশ অংশে জলভাগের পরিমাণ ১ হাজার ৮৭৪ দশমিক ১ বর্গকিলোমিটার, যা পুরো সুন্দরবনের আয়তনের ৩১ দশমিক ১৫ ভাগ। সুন্দরবনের জলভাগে ২১০ প্রজাতির সাদা মাছ, ২৪ প্রজাতির চিংড়ি, ১৪ প্রজাতির কাঁকড়া রয়েছে। জুন থেকে আগস্ট— এই তিন মাস প্রজনন মৌসুমে সুন্দরবনের নদী ও খালে থাকা বেশির ভাগ মাছ ডিম ছাড়ে। এ কারণে ১ জুন থেকে ৯২ দিনের জন্য জেলেদের সুন্দরবনে প্রবেশের সব ধরনের অনুমতি বন্ধ রাখে বন বিভাগ।নিষেধাজ্ঞাকালিন সময়ে ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় এসব জেলেকে ৩ মাসে ৮৬ কেজি চাল দেওয়া হয়।যা জেলেদের জন্য অত্যন্ত কম এবং বেশিরভাগ জেলেরা ঋণগ্রস্ত হওয়ায় তাদের পরিবারে এই ৩ মাসে নেমে আসে অভাব ও হাহাকার।তার উপর কুমির আতঙ্ক তাদের জীবনে যেন নতুন বিষফোড়া।

সর্বশেষ - আলোচিত

আপনার জন্য নির্বাচিত

তালার দলুয়া-শালিখা রাস্তার বেহাল দশা

টাঙ্গাইলে নতুন করে ৩২০ জন করোনা রোগী শনাক্ত

দিনাজপুরে বিআরটিসি বাস ও পিকআপের মুখোমুখি সংঘর্ষ- মৃত্যু ৩

একজন স্বপ্নবাজ তরুণের প্রচেষ্টায় জনসাধারনের আস্থা ও নির্ভরতায় ষ্টার লাইফ হসপিটাল

পাবনার কাশিনাথপুরে বিডি এভারগ্রীন কার্যালয়ে খায়রুজ্জামান কামাল কে সংবর্ধনা প্রদান।

শাহজাদপুরে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০২১ উপলক্ষে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়সভা

জাতীয় সংসদে সংরক্ষিত আসন প্রতিষ্ঠার দাবিতে উলিপুরে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

চাটখিলে বাস টার্মিনালের অভাবে আর যত্রতত্র সিএনজি স্টেশনের ফলে যানজট নিত্য সঙ্গী- সীমাহীন ভোগান্তি

ঝিনাইদহে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

কয়রা উপজেলা কৃষকলীগের সদস্য সচিব, শাহিনের নেতৃত্বে অসহায় কৃষকদের ধান কেটে দিল কৃষকলীগ।

Design and Developed by BY REHOST BD